Posts

Featured Ad

Do you need a website, personal blog?
or
Just want to learn how to make one?

Register

Begum Zia’s telephone conversation and a nifty intent by Sheikh Hasina to foil meaningful dialogue with the opposition


Written By: Mozafor
02/11/2013 19:08
Bangladesh

There is a thing called reasonable demand, but some of our civil society blinded by partisan politics seems not to understand the difference between the reasonable, and unreasonable. Some times to show their neutrality, they blame both party’s for the stalemate on the question of election time government. The solution is clear cut with no if and but, yet they are in self denial to admit that not both party, but only one party is responsible for not accepting what is a reasonable demand by the opposition, and an aspiration of the vast majority of the people of Bangladesh.

The opposition demand is reasonable in the context of Bangladesh politics, where the incumbent government has politicised all institution, and holds executive powers to influence the election results by rigging, or taking advantage of their governmental powers. Hence the need for a non partisan interim government is a must in Bangladesh until our democracy has been fully matured and our institutions has been strengthened. The problem of a solution has been further complicated by government inclined Ekatthor TV’s leaking of Prime Ministers conversation with Begum Zia. The public would not have known the context of the conversation had it not been for the leak, presumably intended to kill two birds by one shot. Some Awami quarters that have benefited from this government financially, they don’t want to see a fruitful dialogue take place between the two ladies, they vastly benefits from political instability and a corrupt Awami Government. The phone conversation has revealed a deep mistrust and more to do with personal argument between the two ladies’s than sincerely finding a political solutions or starting a sincere political dialogue. It is clear from the telephone conversation that this phone call by the Prime Minister to Begum Zia was only meant for show, to satisfy domestic and international players, and ingeniously to foil any meaningful dialogue. The Prime Minister begun by accusing Begum Zia for not answering the red Phone, while that phone had been dead for a long time. This was intended to start an argument, and then followed by many personal argument. The Prime Minister cunningly was insisting on a meeting on 28th October, knowing fully well that this date had personal, emotional, and political significance to Begum Zia’s political partners Jamati Islam. Had Begum Zia agreed on this date it would have angered Jamat, and further divided her political allies, and as she hadn’t agreed, as was expected by Hasina, she could now blame on Begum Zia for the failure. People of Bangladesh are not stupid and daft not have comprehended all this political game. Hasina and her party can save lives and political uncertainty if they accept a simple reasonable demand of a non partisan interim government as proposed by Begum Zia. This is not a complicated offer that would require rocket science; before dissolving the parliament, those proposed neutral people could be elected like the President and speaker by the parliamentary law makers. Both parties would have a level playing field at the election to test their popularity and thereby saving the population from a civil war, which might ensue if a solution is not found.

People of Bangladesh are eagerly waiting for a change in government. Last 7 years had been depressive and traumatic for the nation for many reasons. It started with 2006 Loghi Boitha, killing of Jamat Shibir activists by chatroleague and dancing over their dead body. Many of us who witnessed 2006 brutality by awamileague logi boita on our TV screen had thought the incident to have been the most barbaric, unimaginable crimes committed against  innocent political activists who had been there exercising their democratic rights. Little had we realised that what Awamileague had started with logi biota was to continue with BDR killings, Jamat Shibir killings of 28 February, and Hifazot killings under darkness of night on 6th of May, though many individual killings at different times through out last five years, at the hand of law enforcement officers, had its own barbarism and stories. Today we can piece together how it had all started and who had been behind Bangladesh political game. Begum Zia is under a new trap set by the same culprit as they had done in October 2006. But our powerful neighbours plan will be in vain if our leaders and people stay alert to prevent another any attempt to elect Awami traitors in our country who had done so much damage to our people and national interest. Our neighbours are very shrewd politician with money and resources, and our leaders are weak and vulnerable to greed, self interest and hatred. Our media, which should have been the conscious of nation, the eyes and ears of our people, have all gone commercial and are prone to yellow journalism. So our hope remains on ordinary people, politician, civil society, and officials who are patriotic, and greed free, to foil another conspiracy to bring in unpopular tyrannical government of Sheikh Hasina.

I believe that the intention by Sheikh Hasina from the outset had not been sincere for many reasons. The opposition has been saying that they would not participate in any election under Sheikh Hasina’s leadership, that a non partisan interim government is a must for free fair and credible election. Any person having slightest common sense would know that it was Awamileague and in particular Sheikh Hasina who had created the problem of election time government when she removed it from the constitution, in spite of opinion of the judge in his short judgment, who had ruled that for the interest of the nation another two elections could be held under caretaker provision, but on his full judgment, Sheikh Hasina convinced the judge to remove that provision from his full judgment, so that her dream could be realised.  BNP has made it clear in their press statement after the phone conversation that they are open to talk and would halt all agitation if Sheikh Hasina agrees in principle the concept of a non-partisan interim government. This must be the bases of any talk. This is the core issue that is reasonable and realistic that only Sheikh Hasina could decide. So, in fact, the Ball is in Hasina’s court and not in BNP’s court. Begum Zia could remind Sheik Hasina again that she is open to dialogue, but Sheikh Hasina has to agree the bases in which the discussion will centre around. No fool would engage in a discussion, if a minimum criterion is not met. If it starts then it is likely to fail even before it begins. So if Awamileague is sincere then they should make their intent clear that they would accept a non-partisan interim government, otherwise it will be like fishing in the sea. If Begum Zia stays firm on her principle of a non-partisan interim government, no conspiracy within BNP or outside would succeed.

The demand of a non partisan government is not only demand of the opposition, but 95 % of people of Bangladesh insist this from our government. Begum Zia should directly appeal to the people of Bangladesh, and especially to the youths not to give up their rights for a free, fair, and credible election under a non-partisan interim government. The interest of our nation and people are above the interest of party. If we as people loose our consciousness to greed, self interest and unfairness, the country could slide in to turmoil; Sheikh may come to power again dancing over our victims of injustice, corruption and nepotism.

The following are brief record in Bangla of Sheikh Hasina and Begum Zia’s phone conversation. Almost one-third of the conversation involved trading charges over Khaleda's red telephone which she said had been out of order for a while.

Hasina insisted she had herself called that telephone repeatedly -- Khaleda kept insisting it did not ring and doubted how Hasina could hear the ring if it was out of order.
 
Much of the rest of the conversation centred round charges of promoting terror -- state terror or through the party organisation.


  অনলাইন ডেস্ক: গত শনিবার সন্ধ্যা ৬টা ২০ মিনিটে প্রধানমন্ত্রী টেলিফোন করেন বিএনপির চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়াকে। প্রধানমন্ত্রীর এডিসি এমরানের মোবাইল থেকে বিরোধী দলীয় নেতার বিশেষ সহকারী এডভোকেট শামসুর রহমান শিমুল বিশ্বাসের মোবাইলে এই ফোনালাপ হয়। দীর্ঘ ফোনালাপে দুই নেত্রী ব্যক্তিগত বিষয় নিয়ে কথা বলেন। তিক্ত অভিজ্ঞতাও বিনিময় করেন।
শুরুতেই প্রধানমন্ত্রী বলেন, আপা কেমন আছেন ? আমি আপনাকে দুপুরে ফোন দিয়েছিলাম। জবাবে খালেদা বলেন, আপনার কোন ফোন আমি পাই নি।
শেখ হাসিনা ঃ আমি নিজে ফোন করেছি। কিন্তু আপনি ধরেন নি।
খালেদা জিয়া ঃ রেডফোন তো অনেকদিন ধরে বিকল। আমার অফিস থেকে চিঠি দেয়ার পরেও এই ফোন ঠিক করা হয়নি।
শেখ হাসিনা ঃ কেন আমি তো রিংয়ের শব্দ শুনেছি। আপনি শুনেন নি।
খালেদা জিয়া ঃ না না কোন রিং হয়নি। আমিতো বাসায়ই ছিলাম। রিং হবে কিভাবে ? ওই ফোনতো নষ্ট দু’বছর ধরে।
শেখ হাসিনা ঃ ফোন নষ্ট ছিল, না নষ্ট করে রেখেছেন ?
খালেদা জিয়া ঃ কেমন কথা বলছেন। আপনার লোকদের জিজ্ঞাস করেন। লিখিতভাবে অভিযোগ করা হয়েছে। টিএ্যান্ডটির কর্মকর্তা বলেছেন ফোন নাকি ঠিক আছে। কিন্তু এটা মিথ্যা কথা।
শেখ হাসিনা ঃ কিন্তু আমিতো রিং এর শব্দ শুনেছি। অনেকক্ষন রিং হয়েছে। কেউ ধরে নি। আপনি মিথ্যা বলছেন কেন ? আপনার হয়তো কানে সমস্যা আছে।
খালেদা জিয়া ঃ আমার মিথ্যা কথা বলার অভ্যাস নেই। এসব অভ্যাস আপনার আছে।
শেখ হাসিনা ঃ আচ্ছা বিষয়টি আমি দেখবো। যদি নষ্ট হয়ে থাকে আগামীকাল ১১টার মধ্যে ওটা ঠিক হয়ে যাবে। আগামী নির্বাচন সম্পর্কে গণভবনে এসে কথা বলার জন্য আমি ২৮ তারিখ সন্ধ্যায় আপনাকে দাওয়াত করছি। আপনি জানেন আমি ইতিমধ্যে অন্যদের সঙ্গেও আলাপ-আলোচনা শুরু করেছি। আপনাকে দাওয়াত দিচ্ছি। আমার সঙ্গে রাতের খাবার খাবেন।
খালেদা জিয়া ঃ আপনি কি র্নিদলীয় সরকার নিয়ে আলাপ করার জন্য আমাকে ডেকেছেন ? যদি এটি নিয়ে ডাকেন তাহলে আমি আসব।
শেখ হাসিনা ঃ আমিতো সর্বদলীয় সরকারের প্রস্তাব দিয়েছি। ওটা নিয়ে যদি আপনার কোন সাজেশন থাকে, আমরা সেটা শুনব।
খালেদা জিয়া ঃ এটা আপনার প্রস্তাব। জনগনের এই প্রস্তাবে সায় নেই। এতে তো সমস্যার সমাধান হাবে না। আপনি র্নিদলীয় সরকারের প্রস্তাব নীতিগতভাবে মেনে নেন।
শেখ হাসিনা ঃ আমি যে প্রস্তাব দিয়েছি। তাতে তো আপনার দলের লোকও থাকবে। রাজনীতিবিদরা মিলে এই সরকার হবে। রাজনীতিবিদদের প্রতি আপনার আস্থা নেই কেন ? আপনি র্নিদলীয় সরকার দেখেন নি ? তারা কি করেছে আপনার মনে নেই ?
খালেদা জিয়া ঃ সেটা ভিন্ন বিষয় ছিল। এখন র্নিদলীয় সরকারের দাবি আমার একার না। এটা দেশের সব মানুষের দাবি।
শেখ হাসিনা ঃ আপনি আগে আসেন। আপনার দলের যতজন খুশী সব নিয়ে আসেন। তালিকাটা আগে পাঠিয়ে দেবেন। তবে আসার আগে দেশের স্বার্থে হরতাল প্রত্যাহার করে আসবেন।
খালেদা জিয়া ঃ আপনার বাসায় আসতে আমার কোন অসুবিধা নেই। কিন্তু হরতাল এথন প্রত্যাহার করা সম্ভব নয়। আপনি যদি আমাকে একদিন আগে বলতেন বা আজ সকালেও বলতেন, তাহলেও আমি চেষ্টা করে দেখতাম। হরতাল তো আমি একা ডাকেনি। ১৮ দলীয় জোটের নেতাদের পুলিশ তাড়া করছে। তারা এখন পালিয়ে বেড়াচ্ছেন। আলোচনা করার জন্য এখন তাদেরতো পাবো না।
শেখ হাসিনা ঃ দেখেন আমি আন্তরিকতা নিয়ে ফোন করেছি। আপনিতো আমারে গ্রেনেড হামলা করে মেরে ফেলতে চেয়েছিলেন। আরো কতকিছু করেছেন। তারপরেও তো আমি ফোন দিয়েছি।
খালেদা জিয়া ঃ কে কি করেছে তা আপনিও জানেন, আমিও জানি, দেশের মানুষও জানে। এগুলো বাদ দেন। অতীত নিয়ে বসে থাকলে আমরা সামনে অগ্রসর হতে পারব না। আজো আমার ৮ জন লোককে হত্যা করা হয়েছে।
শেখ হাসিনা : দেখেন আপনি তো ১৫ আগস্ট জš§দিন পালন করেন। কিন্তু ওটা তো আপনার জš§দিন নয়। আপনি আমাদের বাসায় বহুবার এসেছিলেন। আমার ছোট ভাই রাসেলকে দেখেছেন। ছোট্ট এই শিশুটিকে হত্যার দিনে আপনি কি করে কেক কেটে জš§দিন পালন করেন ?
খালেদা জিয়া : দেখেন ১৫ আগস্ট কারো মৃত্যুদিন যেমন হতে পারে,তেমনি অনেকেরই জš§দিনও হতে পারে। ১৫ আগস্ট কারো জš§দিন হলে সে কি দিনটি পালন করবে না ? আমার জš§দিনে আমি পালন করবো, এটা তো আমার নিজস্ব ব্যাপার। আমি তো আপনার কোনো ব্যক্তিগত বিষয় নিয়ে প্রশ্ন করি না।
শেখ হাসিনা ঃ যাই হোক, এখন আলোচনার জন্য আমার আন্তরিকতা আছে। তাই ফোন করেছি। আপনি আসেন। আমরা আলাপ-আলোচনা করি।
খালেদা জিয়া ঃ আপনার আন্তরিকতা থাকলে, আরো আগেই ফোন দিতেন। এখনো যদি নীতিগতভাবে র্নিদলীয় সরকারের দাবি মেনে নেন, তাহলে হরতালসহ সব কর্মসূচি বন্ধ করার দায়িত্ব আমি নেবো। সমাধান হয়ে গেলে তো আর কোন কর্মসূচির দরকার হবে না।
শেখ হাসিনা ঃ আপা আপনি আগে আসেন। হরতাল প্রত্যাহার করে আসেন।
খালেদা জিয়া ঃ ২৯ তারিখ পর্যন্ত তো আমার কর্মসূচি আছে। ২৯ তারিখের পর যেকোন দিন যেকোন স্থানে আপনি ডাকলে আমি আসবো।
শেখ হাসিনা ঃ হরতাল প্রত্যাহার করে আসেন। আমরা বসলে একটা সমাধান হবে।
খালেদা জিয়া ঃ না না না আগে আপনি ঘোষণা দেন। তাহলে আমার বসতে কোন অসুবিধা হবে না।
শেখ হাসিনা ঃ আপনি আপনার দলের নির্বাচিতদের নাম দেন। বাইরের লোকদের নাম প্রস্তাব করছেন কেন। দেশ চালাবো আমরা। বাইরের লোকের দরকার কি ? আমাদের উপর আস্থা রাখছেন না কেন।
খালেদা জিয়া ঃ আপনিও তো আমার উপর আস্থা রাখেন নি। সে কারণেই এখন দলের বাইরের লোক লাগবে। দেশের মানুষ র্নিদলীয় সরকার চায়। আপনি এ দাবি মেনে নিলেই সমস্যা শেষ হয়ে যাবে। আপনি যদি তত্ত্বাবধায়ক সরকার পছন্দ নাই করেন,তাহলে কেন ১৯৯৬ সালের নির্বাচনের আগে জামায়াতকে সঙ্গে নিয়ে এই দাবিতে আন্দোলন করেছিলেন ? ২০০৭ সালে কেন ওই সরকারের শপথ অনুষ্ঠানে গিয়েছিলেন। বলেছিলেন, এটা আপনাদের আন্দোলনের ফসল। এরপর সেই সরকারের অধীনে নির্বাচনেও গিয়েছিলেন। কিন্তু আজ বলছেন অন্য কথা।
শেখ হাসিনা ঃ দেখেন আপা, অভিজ্ঞতা যেমন আমার আছে, তেমনি আপনারও আছে। আমরা তো আপনাদের লোক নিয়েই অন্তবর্তী সরকার করতে চাচ্ছি। আপনি এখন চিন্তা করে দেখেন।
খালেদা জিয়া ঃ এখানে চিন্তার কিছু নেই। আপনি দাবি মেনে নিন। দেশের মানুষকে শান্তি দিন। এই দেশটা আপনারও না, আমারও না, ১৬ কোটি মানুষের। তাদের শান্তির কথা, স্বার্থের কথা চিন্তা করেন। আমি তো সেসময়ে আপনার দাবি মেনে ছিলাম। আমি তো এখন আমার দলের সরকার চাই না। আমার নিজের সরকারও চাই না। চাই সবার কাছে গ্রহণযোগ্য নির্দলীয় লোকদের সরকার। সেটা মানতে আপনার আপত্তি কেন বুঝতে পারছি না।


8190 views 0 comments
Share this post: http://bit.ly/16vBQ4I
facebook share
 


Comments

No comments yet. Be the first to make a comment

Write a comment

Please login first. It only takes few seconds to register.

About Mozafor

    profile pic
  • Name: Mozafor Ali
  • From:
  • Nationality: United Kingdom
  • Profile:

    I am interested in making the world a better place. Visit my Blog site: mozafor.blogspot.com

  • Posts viewed: 55
  • Total Posts: 59
  • Share this profile: kaagoj.com/blogger/Mozafor